সুমনের স্মৃতিগুলো আজও আমাকে কাদায়।- মীর সজিব।

সুমন নামটি এখন শুধু স্মৃতি।
সুমন আমার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বন্ধু থেকে শুরু করে জীবনের শেষ মুহূর্তে এসেও আমার বন্ধু ছিলো এখনো আছে।
শুধু সুমনটায় নেই। স্মৃতিগুলো আছে তবে স্মৃতির মানুষটায় নেই। শুধু কষ্ট দেওয়ার জন্যই বুঝি স্মৃতিগুলো রয়ে গেছে।
প্রথম শ্রেণী থেকেই সুমনের সাথে আমার পরিচয়। সুমনের বাড়ী আমার স্কুলের পাশেই ছিলো। সুমন খুব নরম মেজাজের ছিলো। ছিলো খুব আবেগী। প্রকৃতির প্রতি ছিলো তার অগাধ ভালোবাসা। বৃষ্টি হলে সুমন যেন এক নতুন প্রাণ ফিরে পেতো। বৃষ্টিতে পাহাড়ে থাকা সবুজ লতাপাতাগুলো যেভাবে সতেজ হয়ে উঠে ঠিক সুমনও বৃষ্টি আসলে সতেজ হয়ে উঠতো।
সুমনের সাথে প্রাথমিক বিদ্যালয় শেষ করে একই সাথে মাধ্যমিক স্কুলে ভর্তি হই। সুমনের সাথে ছিলো আমার সব থেকে বেশি চলাফেরা।  স্কুল বন্ধ থাকলেও বিকেলে আমরা এক সাথে বসে আড্ডা দিতাম।
আগেই বলে ছিলাম সুমন খুব আবেগী ছেলে ছিলো। প্রকৃতিকে অনেক ভালবাসতো। মাধ্যমিক স্কুলে এসেই যেন আবেগগুলো বাড়তে শুরু করলো।
আমি তার কাছের বন্ধু ছিলাম বলে তার অনেক ঘটনারই সাক্ষী। এই সাক্ষী হয়ে থাকা স্মৃতিগুলোই আমাকে বেশি কষ্ট দিচ্ছে। তার এই স্মৃতিগুলো আমাকে খুব কাঁদাচ্ছে।
বসন্তের পরপরই প্রকৃতি তার নতুন জীবন ফিরে পায়। গাছপালা নতুন নতুন পাতা ও ফুলের দেখা পায়। এ যেন এক ভালবাসাময় মুহূর্ত। সেই মুহূর্তে বৃষ্টি আসা মানেই আবেগী মানুষদের আবেগ আরো বেশি বাড়িয়ে দেয়। আমার বন্ধু সুমন সেই মুহূর্তটি পেতে যেন এক নতুন জীবন ফিরে পেয়েছিলো। সে এক মুহূর্তও বিলম্ব না করে স্কুলের সামনে থাকা ফুল বাগানের গাছগুলোর নিচে দাঁড়িয়ে দুই হাত ছেড়ে দিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলো, বৃষ্টিতে তার সাদা পোশাকটি শরীরের সাথে মিশে যায়। সে যেন এক অন্য জগতে ছিলো। কিছুক্ষণের মধ্যেই আমরা সবাই হাসতে থাকি আর দুষ্টুমি করে বলতাম তোর পাগালামি বন্ধ কর বৃষ্টিতে বেশী ভিজলে জ্বর উঠবে।
সে যেন আমাদের কথা কানেই নিতো নাহ, সে একমনেই বৃষ্টি ও প্রকৃতিকে উপভোগ করতো।
আমাদের সবার থেকে সুমন ছিলো অন্যরকম। সে খুব নরম মনের মানুষ ছিলো।
কখনো ঝগড়া বিবাদে তাকে পাওয়া যায় নি।
দুষ্টুমি করে কাউকে বকা দেওয়াও তার পছন্দ ছিলো নাহ।
জীবনের তাগিদে মাধ্যমিক পাশ করার পর দু’জন দু’দিকে চলে যাই। ধীরে ধীরে আমাদের ব্যাস্ততাও বেড়ে যায় যোগাযোগ ও কমে যায়।তবে আমাদের যে মিলন হতো নাহ তা কিন্তু নয়। সুমন তার গ্রামের বাড়ী আসার আগে আমাকে ফোন দিয়ে আসতো সে বাড়িতে আসবে। আমিও চলে আসতাম গ্রামের বাড়িতে।
প্রত্যেক ঈদেই তার বাড়িতে যাওয়ার জন্য আমাকে ঈদের নামাজ পড়ার পরপরই খুঁজতে থাকে। আমাকে কাছে পেয়েই আমার হাত ধরে তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়া যেন তার কর্তব্য ছিলো।
এ স্মৃতিগুলো আজ আমাকে খুব কষ্ট দিচ্ছে।
আমি কষ্টগুলো সইতে পারতেছি নাহ।
শুধু চোখের জল-ই আমাকে সাত্ত্বনা দিচ্ছে।
৬ ঈ মে ২০১৭ সাল। রোড এক্সিডেন্ট এ মারা যায় আমার বন্ধু সুমন।
সুমনের স্মৃতিগুলো আজও আমাকে কাদায়।

 

Suman The name is now just memories.
Suman, my primary school friend, came to my last moment of my life.
Not just in the mind. There are memories, but there are no people in memory. The memories are just for hurting
My identity is with you from the first class. The house was next to my school. Suman had very soft mood. It was very emotional. His love for nature was unfathomable. When it rains, Suman returns to a new life. As the green lats in the rain get refreshed, the rains are refreshing
After finishing primary school with Sumind, I was admitted to a secondary school. I had a good walk with you.  We had to sit together in the afternoon even though the school was closed.
I was told that Suman was a very emotional boy. Nature has many valbasto. In middle school, the emotions started growing
I was a close friend to him, saying that he witnessed many mishaps. The memories of this witness are hurting me more. His memories are shaking me.
Shortly after spring, Nature gets its new life back. The plants also see new leaves and flowers. It is like a moment of love. At the moment, the mood of the rain will further boost the sentiment of the emotional people. My friend Suman got the moment to get a new life back. He was standing at the bottom of the trees in front of the school without delaying a moment, and left two hands in the rain, his white outfit mixed with the body. He was like a different world. In a few days, we all laugh and feel a lot of evil.
As if he had not spoken to us, he was enjoying the rain and the nature of the water
The man from all of us was different. He was a soft-minded man.
He was never found in a quarrel.
Scolded someone for being too wicked
The two went on to go after the intermediate pass in the tagin of life. Gradually, our heartbeats also increased communication and decreased. But it is not that we were reconciled. Suman would come home to call me before he came home to his village. I’m going to go to the village house
Every Eid is looking for me to go to his house soon. It was a duty for me to take my hand to his house
These memories are hurting me today.
I can’t wait
Only the water of the eye is giving me a sattva
6 May 2017. My friend Suman died at the road accident
I am still in the mud.

কমেন্ট করুন