ধর্ষণের জন্য দায়ী কে ?

মেয়েটির পোষাকের কারণে হয়তো ধর্ষণের শিকার হয়েছে। কোন একটি ধর্ষণের ঘটনা শোনার পর আপনি আমি আমরা এই একটি কথা খুব সহজেই ছুড়ে মারি। কথাটি বলা আসলেই খুব সহজ।
যখন কোন একটি পত্রিকায় শিশু ধর্ষণের খবর দেখতে পান তখন কি পোষাকের দোহাই দেন যে পোষাকের কারণে হয়তো ধর্ষণ হয়েছে। পত্রিকাতে এখন স্বাভাবিক ঘটনার মতোই শিশু ধর্ষণ। একটি শিশুর শরীর কি এমন লোভনীয় যা দেখে ধর্ষণ করার চিন্তা মাথায় আসে। বিকৃত মানসিকতার না হলে কি এমনটা হয়।
একজন সুস্থ মানসিকতার ব্যাক্তি দ্বারা কি ধর্ষণ সম্ভব? ধর্ষণের ক্ষেত্রে পোষাক কেন দায়ী হবে? একটি মেয়ের সারাদিনের কর্মব্যস্ততা শেষ করে বৃষ্টি বা ঘামে ভিজে তার শরীরে লেপ্টে থাকা পোষাক দেখে  আপনার আমার চেতনা দন্ড কি চেতনাত্মক হয়ে যাবে?
 যদি এসব দেখে আপনার চেতনা দন্ড আকাশমুখী হয়েই যায় তখন আপনার করণীয় কি? মেয়েটির পিঠে হাত বুলানো?  রাস্তাঘাটে তো কুকুর নোংরামি করে। কুকুর তার চেতনাদন্ড উঁচু করে রাখে আপনি কি কুকুর শ্রেণীর প্রাণী। কুকুর শ্রেণীর প্রাণী না হলে রাস্তায় বা বাসের মধ্যে আপনার চেতনাদন্ড কিভাবে চেতনাত্মক হয়ে যায়?
মেয়ে জাতী মায়ের জাতী, সম্মানের জাতী। মেয়েদের অনেক সম্মান করি।
কিন্তু সমাজে কিছু মেয়ে নামক কীট ও রয়েছে। যাদের একমাত্র কাজ বেহায়াপনা করা। নিজের দেহের প্রশংসা শোনার জন্য শো-পিচ করা। তাদের আপনি মেয়ে জাতী বলতে পারবেন না। মেয়ে জাতী তো তারা যারা সম্মানিত। শো-পিচ করা মেয়েরা ধর্ষণ হয় না। তারা তা আধুনিকতার মোহে পরে আছে।
 তাদের জন্য বরাদ্দ থাকে দামী ফ্ল্যাট ও Candle Night। 
লেখা : মীর সজিব