বৃষ্টির প্রথম প্রহরে সুপর্ণা’র স্পর্শ।

29853138_1004013116418330_1478735678_n-1
লেখা ঃ মীর সজিব
সকাল থেকেই মুষলধারায় বৃষ্টি। এই সময়টাতে খুব দরকার ছিলো বৃষ্টিটার। কাল বৈশাখীর আগমন আজ এই বৃষ্টি দিয়ে জানান দিলো। যদিও এখনো বসন্তকাল। বসন্ত মানেই প্রেমিকযুগলদের ভালোবাসা সতেজ হয়ে উঠা। মনের মধ্যে একটি রঙিন ভাব চলে আসা।
বৃষ্টি’র পরিমাণ বেশি হওয়াতে বাইরে বের হওয়ার কোন উপায় নেই। তবে বৃষ্টি আসলে আমি একটু স্বস্তি পাই। তবে সকল বৃষ্টিই আমাকে স্বস্তি দেয় না কিছু বৃষ্টি আমার উপর অনেক চাপের কারণও হয়ে যায়।আজকের বৃষ্টি আমার জন্য স্বস্তি। বৃষ্টিতে সিভিল প্রজেক্ট এর কাজ বিঘ্ন ঘটায় সেখানে ভিজিটে যেতে হয় নি।
শুধু যে বৃষ্টি আমার স্বস্তির কারণ তা কিন্তু নয়। আরেকজন তো আছেই। যার কাছে আমি সব সময় বোকা প্রেমিক বোকা স্বামী। বৃষ্টি বেশি থাকায় সুপর্ণা’র ও আজ হাসপাতালে যেতে হচ্ছে না, ফোন করে জনিয়ে দিয়েছে আজ আসবে না সে।
মাধ্যমিক থেকে লুকিয়ে লুকিয়ে প্রেম করাটাই মনে হয় ভালো ছিলো। একজন আরেকজন এর জন্য এত সময় ব্যয় করতাম দূরে থেকেও। আর এখন একই ছাদের নিচে থেকেও নিজেদের সময় দিতে পারছি না।
সুপর্ণা’র হাসপাতাল আর আমার সিভিল প্রজেক্ট। তবে সম্পর্কের এতদূর আসা সবটাই সুপর্ণা’র ক্রেডিট। পাগলি মেয়েটা এখনো অন্ধের মতোই বিশ্বাস করে। একটি সম্পর্কে ভালোবাসার পরিমাণের চাইতে বিশ্বাস এর পরিমাণটা বেশি থাকা উচিত।
অনেকদিন পর আজ বসন্তের বৃষ্টি। দুজনের মনেই কেমন যেন একটা বসন্তের ছোয়া লেগে গেলো। আমাকে সকালের নাস্তা দিয়ে সুপর্ণা গোসলে চলে গেলো। আমিও বোকা স্বামীর মতো তার গোসলখানায় যাওয়ার দিকে তাকিয়ে রইলাম। এই বৃষ্টির সকালে গোসল করতে হবে কেন, পরিবেশ আজ এমনেই ঠান্ডা। তাকিয়ে থাকার মাঝেই যে কখন খাবার খেয়ে নিলাম বুঝতে পারলাম না। হয়তো খুধা বেশি ছিলো।
খাবার শেষে টিভির রিমোট হাতে নিতেই আমার সামনে এক পরী এসে দাঁড়িয়েছে। আমিতো প্রথম ভয় পেয়েছিলাম। টিভি স্ক্রিন থেকে কোন মডেলিং মেয়ে বের হয়ে আসলো নাকি।
পায়ে নূপুর, লালা সাদায় মিশ্রিত শাড়ী তবে শাড়ীর নিচে একটি লাল কাপড়ও খানিকটা দেখা যাচ্ছে, প্রতিনিয়ত শাড়ী পরার অভ্যাস না থাকলে যা হয় আরকি। শাড়ীর অংশ দেখা শেষ করছি আর বসন্তের রঙ মনে বেড়েই যাচ্ছে, শাড়ির পরেই চলে আসলো লাল হাতাকাটা ব্লাউজ আর গলার নিম্নাংশে হালকা মেকআপ এর ছোঁয়া। লাল লিপস্টিকে আচ্ছাদিত ঠোঁট, যেন সদ্য খোসা থেকে ছোলানো কমলার দু’টি পিছ। নাকটিও যেন কেমন কামনাকাতুর হয়ে আছে। কাজলনয়ন দুটি চোখ কাজলে আচ্ছাদিত। কালো চুলের খোপায় গোলাপের অভাব মনে হচ্ছে। আমি একপলক তাকিয়ে থেকেই এত কিছু নির্ণয় করে ফেলেছি যে মাথায় সারাদিন শুধু ইট পাথরের ভাবনা সেই মাথায় আজ এত ভালোবাসার ভাবনা কিভাবে এলো।
আমি সুপর্ণা’কে কিছু বুঝতে না দিয়ে তার চুড়ি পরা হাত ধরে বারান্দায় নিয়ে গেলাম। বারান্দায় সদ্য ফুটা পবিত্র গোলাপটি হয়তো আজ আমার জন্য এত সুন্দর করে ফুটেছে। গাছ থেকে গোলাপটি সুপর্ণার কালো চুলের খোপায় বসিয়ে দিলাম। দুইটি গোলাপের সৌন্দর্য আমাকে বরাবরের মতোই বসন্তের ভ্রমর বানিয়ে দিচ্ছে। বাইরে মোষলধারে বৃষ্টির ছোঁয়া আর আমার সামনে বসন্তের বাসন্তী এসে দাঁড়িয়ে। এই একটি মুহূর্তে নিজেকে সামলানো কোন পুরুষের পক্ষেই সম্ভব নয়। নারীর প্রেমের কাছে সব পুরুষই পরাজিত। আর আমি বোকা স্বামী কিভাবে জয়ী হতে পারি। সুপর্ণার কাঁধে হাত রেখে তার লিপিস্টিকে আচ্ছাদিত ঠোঁটের কাছে আমার মুখ নিতেই সুপর্ণা তার হাত দিয়ে থামিয়ে পাশের ছাদ দেখিয়ে দিলো, সেই ছাদে নব্য বিবাহিত কাপলটি বৃষ্টিতে ভিজছে আর মিটিমিটি হাসির রাজ্যে হারিয়ে যাচ্ছে। সুপর্ণা আর আমি তাদের আনন্দের দিকে তাকিয়ে রইলাম।
আমার নীরবতা ভেঙে দিয়ে সুপর্ণা বলে আমাদের বেডরুমটা আজ সুন্দর সব ফুল দিয়ে সাজিয়েছি। আমিও সেই বোকা স্বামীর মতো জিজ্ঞেস করি ফুল পেলে কোথায়, সুপর্ণা হাত দিয়ে বারান্দার গাছগুলোর দিকে দেখিয়ে দিলো সত্যিইতো ফুল গাছগুলোতে আজ একটিও ফুল নেই আর একটি গোলাপ বুঝি সুপর্ণা আমার জন্যই রেখে দিয়েছে। তা ভেবেই বোকার মতো হাসি দিয়ে সুপর্ণা কে কোলে নিয়ে বেডরুমের দরজা লাগিয়ে দিলাম। এই বৃষ্টিগুলোতো আমাদের মতো কাপলদের জন্য।

 

Account: Mir Sajib
It’s raining in the morning. The rain was very important. The arrival of tomorrow is a very rainy day. Even though it’s still spring. The love of the lovers in springtime has been refreshing. A colorful mood in the mind.
There’s no way out of the amount of rain. But I get a little relief from the rain. But all the rain does not comfort me. Today’s rain is a relief for me. As the civil project was interrupted by the rains, there was no visit
Only the rain is my relief, but it is not. Another is there. To whom I have always been a stupid lover of stupid husband. I’m not going to go to the hospital today.
It was good to be hiding from the middle. A damning one would have spent so much time away from the far right. And now we can’t give ourselves the same roof.
Suparna’s Hospital and my civil project. But this is the credit of Suparna. The girl in the passly is still believed to be blind. It should be much more than the amount of love in a relationship.
It’s been a long day of spring rain. How did it take a stellar spring. I had breakfast with me in the morning. I am looking forward to going to his bathroom like a stupid husband. The rain will take a shower in the morning, why the atmosphere is cooler today. I couldn’t understand when I was looking for a meal. Maybe it was more than a shack.
At the end of the meal, I have a fairy in front of the TV remote. I got scared first. No modelling girl coming out of TV screen or.
There is a little bit of red cloth underneath the Shaadi, but it is not the practice of wearing sarees. I’m finished watching the Shahis, and the colour of the spring is on the rise, just after the sarees came out, the red neck blouses and the lower the throat of the light makeup. The red Lipstek covered lips, as if it were two of the shells. The nata is like a kind of lust. The two eyes are covered with a glass of water. Black hair looks like a lack of roses. I’ve been able to look at an eyelid so much that I’ve been thinking about it all day!.!.!. I did not understand Suparna and went to the porch with her bangles. The just-concluded holy rose on the porch may have been so beautiful for me today. The roses from the tree sit on the black hair of the good. The beauty of the two roses is making me like a spring Hornet. Moshladhar outside, it is a touch of rain and the spring is standing in front of me. It is not possible for a man to handle himself in a moment. All men are defeated in the love of women. And how I can overcome the stupid husband. With his hand on the shoulders of the Suparah, my face was covered with his lipids, the roof of his hand, and the next one on the roof. Suparna and I looked at their joy.
I broke my silence and said, ‘ I have made our bedroom with beautiful flowers today. ‘ I ask you, like the stupid husband, to see where the flowers are, and to show them to the trees on the verboars. It would be foolish to smile and put the doors of the bedroom in the lap of Suparna. The rain is for the people like us.
print

কমেন্ট করুন