জন্ম যদি হতো হাবিবুন নাহার মিমি

জন্ম যদি হতো হাবিবুন নাহার মিমি

জন্ম যদি হতো
হাবিবুন নাহার মিমি

জন্ম যদি হতো
জিহাদের ময়দানে,
ফিলিস্তিন, কাশ্মীর বা
আফগান রণাঙ্গনে।

 

জন্ম যদি হতো—
শহীদের মেয়ে, শহীদের স্ত্রী
শহীদের বোন হয়ে,
শহীদ জননী গর্বিত আহা
বুকে শহীদের লাশ লয়ে।

 

জন্ম যদি হতো—
জন্ম যদি হতো যেদেশে
মুসলিম নেই ঘুমে,
মৃত্যু যেখানে হয় গো শুধুই
শাহাদাত-পেয়ালা চুমে।

 

আমার রক্ত হতো যদি
সেই সে মায়ের লহু,
শহীদী তামান্না বুকে চেপে যে
দিয়েছে কবর বহু।

 

যার ছেলেরা খেলনা নয়
অসি দিয়ে করে খেলা,
শত্রুর মুখে পদাঘাত হেনে
বিজয়ী যে প্রতিবেলা।

 

কাশ্মীরী নারী দেখেছো কি কভু
বুকে কী ঈমান-জোর?
সেই তোজোদ্দীপ্ত চাহনি মাঝেই
জালিমের ভয় ঘনঘোর।

 

শুনেছো কি তার অগ্নি-জবানে
“আল্লাহু আকবার”?
যে ধ্বণি ডাকে, “কোথা কাফির,
কোথা মুশরিক আয় আর।”

 

যেথা চুড়ি পড়ে আছে মুসলিম ভাই
ভুলেছে জিহাদ ডাক,
জুজুর ভয়ে কাঁপে আর বলে
কাল হবে, আজ থাক।

 

মুনাফিক তারা, জিহাদেরে ভাবে
সন্ত্রাস; হায় জাহেল,
জান্নাত চাস? ওরে মূর্খ
“যা, গো টু হেল।”

 

কানে ঢোকে না আফগান বোনের
বুকফাটা চিৎকার,
লাল সেনারা করছিলো যখন
গণ-বলাৎকার।

 

ফিলিস্তিনের প্রতিটা গ্রাম
জ্বলে পুড়ে আজ খাক,
চোখে ঠুলি পড়ে
বলিস তবু “কাল হবে, আজ থাক?”

 

মুসলিম কভু হয়না ভীতু
মুনাফিক দল তোরা,
তাই তো জালিম তোদের বুকে
ঘোরায় দাসত্ব-ছোরা।

 

ফিলিস্তিনের সেই শহীদ বালক
বলেছিলো অভিমানে,
“আল্লাহ তোমাদের করবে না ক্ষমা
তামাম জাহান জানে।

 

আমার মা-বাবা, সব ভাই-বোন
বুলেটে ঝাঁঝরা হয়,
এসির বাতাসে তোমাদের ঘর
কতো সুগন্ধময়।

 

ঘুমাও ঘুমাও, আরব-ইরান
ঘুমাও সারা জাহান,
কাপুরুষ তুমি, ওই হৃদয়ে
নেই কোনো ঈমান।

 

যাদের কথায় করছো গোলামী
ভাইয়ের বুকে হানো ছুরি,
টেনে হিঁচড়ে চলেছে তোমায়
নিয়ে তারা দোযখপুরী।

 

রোজ হাশরে আল্লাহ যেদিন
শুধাবেন তোমায় শোনো,
তোমার কাছে এ কাপুরুষতার
জবাব রবে কি কোনো?

 

কোন মুখ নিয়ে রাসূল-সমুখে
দাঁড়াবে হে উম্মত?
ভাইয়ের কবরে দাঁড়িয়ে করেছো
আনন্দ-মিছিল-মদ!”

 

জন্ম যদি হতো—
পাহাড় সমান ঈমান নিয়ে
জালেমের টুঁটি চেপে,
বলতাম তবে, “মুসলিম আমি
কথা বল্ শাসক মেপে।”

 

খোদার মর্জি জন্ম আজ
হয়েছে এমন দেশে,
মুসলিম বলে পরিচয় দিলে
ইবলিশ দেয় হেসে।

 

জন্মসূত্রে সম্পদ-সাথে
পেয়েছি ধর্মটা,
তাই ঈমানের গায়ে দেই চাপিয়ে
গোলামীর বর্মটা।

 

আল্লাহর শাসন কায়েমে নাই
এ কওমের হুঁশ,
ঘুম ভাঙে যদি ক্বচিৎ কারো
বুলেট বলে— “ঠুস!”

 

মুশরিক আর কাফেরের পা
নিত্য চাটে এ জাত,
মা-বোনের ইজ্জত লুটায় তবু
টিপ-কপালে প্রতিবাদ।

 

নামের প্রথমে বসায় এ জাতি
মহান “মুহম্মদ”,
ইসলামের ওই খুলিতে ঢেলে
খায় পাষন্ডরা মদ।

 

বাঘ-সিংহ যাদের ভয়ে
মাটিতে ঠেকাতো শির!
সে জাতির মা, দুলালে ডাকে
“বেড়াল আসছে, ফির এদিকে ফির!”

 

ধিক শতো ধিক! তবুও বলিস
মুসলিম তুই, হায়!
কাকে বলে মুসলিম, যা
জঙ্গ-ময়দানে শিখে আয়।
Headlines
error: আপনি আমাদের লেখা কপি করতে পারবেন নাহ। Email: Info@mirchapter.com
google.com, pub-4867330178459472, DIRECT, f08c47fec0942fa0