ঘুমন্ত মানুষের লাশ। – ফারহানা কলি।

বরফ শীতল ঘরের নদীতে

বরফ শীতল ঘরের নদীতে ,যখন তুমি একলা ফেলে বিদায় নাও ,
তন্দ্রাচ্ছন্ন মোহে নির্জীব পরে থাকা দেহে, কেবলই একটু ঘুম জড়ায়।
তবুও উমম শব্দের প্রতিবিদায় দেয়া মনের , একাকীত্ব ভর করে।
আবার গভীর ঘুমে তলিয়ে যেতে থাকা , নিশাচরদের সব ঘুম কেড়ে নিয়ে ।

এক নিশীথীনী রাতের অন্ধকার ভেদ করে , জানালায় চাঁদ ওঠে।
আরেক প্রহরে ,প্রবল বিষন্নতায় ঢেকে যায় সেই চাঁদ, জানালার কার্ণিশে।

হিমাঙ্কের নিচে নেমে যায় যদি, কোন একদিন পেলে বরফ জমা নদী ।
দু:খ পাওয়ার বহুকাল পর, একদিন ভেবে দেখবে কি ?
কেমন করে জমে গেলাম , দেহ নামের যত্নে গড়া মাটির পুতুলে।
দম দেয়া দেয়াল ঘড়ির মতো , টিকটক করে চলতে থাকা হৃদয় শব্দ ঘড়ি।

নীলাভ আলোয় মোহময় লাগে , নীল হয়ে জমে যাওয়া দেহাবশেষ টুকুন ।
নিথর, নিরবে পরে থাকলেও , কেবলই মনে হয় ,ঘুমন্ত একটা সময়ের ছবি।
এই বুঝি চোখ মেলল, এই বুঝি জেগে গেলো,
না, চোখ মেলা হয় না আর ।
হয় না ,আর একবার জেগে ওঠা ঐ হিমাঙ্ক ভেদ করে ।

অতলান্তিকের কোন গ্লেসিয়ার ভেদ করে,
বের হয় না উন্মাদনার বাষ্প।
চোখের কোনে অশ্রুকণা জমাট বাঁধে পিচুটি হয়ে ।
মন হয় বিবশ, কোন শুকিয়ে যাওয়া নদীর বুকে জেগে ওঠা বালুচর ,
বরফ নদীতে ভেঁসে ওঠা একলা কোন ঘুমন্ত মানুষের লাশের বিদায়।

০৮.১৩.২০১৮
নিউ ইর্য়ক ।

পাদটীকা: ৬০ ডিগ্রী ফারেনহাইট হিম শীতল ঘরে ঘুমানোর পর ,মনে ভেসে ওঠা
কিছু স্হির চিত্র ।

print

কমেন্ট করুন