কাঁঠালিয়া সমাজ কল্যাণ পাঠাগারের উদ্ধোধন ।

কাঁঠালিয়া সমাজ কল্যান সংস্থার উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হওয়া কাঁঠালিয়া সমাজ কল্যাণ পাঠাগারের উদ্ধোধন করা হয় আজ বিকেল ৩ ঘটিকায়। এই উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে গ্রামের ০৬ মসজিদে ৩০ পিস বাংলা অনুবাদ সহ কোরআন শরীফ বিতরণ, কোরআনের হাফেজ সংবর্ধনা এবং ইমামদেরকে সম্মানী প্রধান করা হয়।

এই উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে সংগঠনের উপদেষ্টা মণ্ডলী সহ সংগঠনের সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবক টিমের সকল সদস্যসহ গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গগণ উপস্থিত ছিলেন।

গ্রামের সকল উন্নয়ন মূলক কাজে এই কাঁঠালিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থা এগিয়ে এসেছে। ২০১৯ সালে স্থাপিত হওয়া সংগঠন’টি গ্রামের উন্নয়নে প্রশংসনীয় অবদান রেখে আসছে। ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার নবীনগর উপজেলার কাঁঠালিয়া গ্রামে এই সংগঠনটি পথ চলা শুরু করে।

জ্ঞানের জন্য এসো,আলোর জন্য এসো,কল্যাণের জন্য এসো–
এসো সবার আগে,দেশটাকে ভালবাসি-বই পড়ে মেটাই জ্ঞানের তেষ্টা!!

এই শ্লোগানকে ধারণ করে নবীনগর উপজেলার জিনদপুর ইউনিয়নের কাঠালিয়ায় প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে কাঠালিয়া সমাজ কল্যাণ পাঠাগার।

দেশে অবস্থান করা ও প্রবাসী গ্রামের নিষ্ঠাবান মানবদরদী শতাধিক ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত কাঠালিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র অর্থায়নে এই গন পাঠাগার প্রতিষ্ঠাতা করা হয়েছে।
সিংগাপুর প্রবাসী সংগঠনের সভাপতি সৈয়দ সোহেল রানা ও সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম বাবু গতিশীল নেতৃত্বে শুক্রবার বিকেলে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে কাঠালিয়া বাঘাদানা বাজার সংলগ্ন আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে পাঠাগারের শুভ উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের আমন্ত্রিত অতিথিরা।

সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা সৈয়দ জামাল মাষ্টার এর সভাপতিত্বে সংগঠনের আইন বিষয়ক সম্পাদক শিক্ষানবিশ আইনজীবী সোহেল মিয়ার পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন প্যানেল উপদেষ্টা প্রধান মোঃ মকবুল হোসেন ও মোঃ হাবিবুর রহমান,উপদেষ্টা হাজী মোহাম্মদ জীবন মিয়া,নাজমুল হোসেন সেন্টু, বাবুল মিয়া,মাজেদুল ইসলাম,সংগঠনের উপদেষ্টা সমন্বয়কারী জি এম নাদির হোসেন (এমদাদ)
উপদেষ্টা সমন্বয়ক,কাঁঠালিয়া সমাজকল্যাণ সংস্তা
ব্যবস্থাপনা পরিচালক এশিয়াটিক বিডি গ্রুপ
জি এম নাদির হোসেন(এমদাদ) পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক লীল মিয়া মাষ্টার,গ্রামের কৃতিসন্তান সৈয়দ আশরাফ উদ্দিন,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী রবিউল আউয়াল রবিন,জুলহাস মিয়া প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নবীনগর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এম কে জসিম উদ্দিন।

এসময় বক্তারা কাঠালিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতার এক বছরে বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কাজের জন্য ভুয়সী প্রশংসা করেন।
এবং এই ধরনের মহৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে এই সংগঠনের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি জ্ঞাপন করেন।

আলোচনা পর্ব শেষে কাঠালিয়া গ্রামের ছয়টি মসজিদের ইমাম,মনোমহন আশ্রমের সেবায়েত ও গ্রামের একজন কোরআন হাফেজকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য কাঠালিয়া গ্রামের আর্তসামাজিক উন্নয়ন, মানবতার কল্যাণে কাজ করার তাগিদ নিয়ে কাজ করার প্রত্যয়ে গত বছর সিংগাপুরে প্রতিষ্ঠা করেন এই গ্রামের কতিপয় যুবক।
তারই ধারাবাহিকতায় এই সংগঠনের কার্যক্রমকে বেগবান করতে দেশে অবস্থান করা যুবক ও মুরুব্বিদের সমন্বয় করা হয়।

তাতে নতুন করে কমিটি গঠন করে এই পথচলাকে আরো প্রস্তত করতে ২৯ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদ,৫৭ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী পরিষদ ও ৪৬ সদস্য বিশিষ্ট সাধারণ ও স্বেচ্ছাসেবক কমিটি গঠন করা হয়।

প্রতিষ্ঠার এক বছরে শীতবস্ত্র বিতরণ,করোনা মহামারী কালিন সময়ে লিফলেট মাক্স ও হেন্ড সেনিটাইজার বিতরণ ও ত্রান সামগ্রী বিতরণ করেন।

ঈদ সামগ্রী বিতরণ,গ্রামের রাস্তা সংস্কার,ইসলামী বিলবোর্ড স্থাপন,পাঠাগার প্রতিষ্ঠাতা করে এলাকায় এখন এই সংগঠনটি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে।

সংবাদ সুত্র ঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিদিন অনলাইন নিউজ পোর্টাল