“বেশ্যা” শব্দটার লিঙ্গান্তর নেই- ফাহমিদা আলী।

“বেশ্যা” শব্দটার লিঙ্গান্তর নেই- ফাহমিদা আলী।

“#বেশ্যা”, শব্দটার লিঙ্গান্তর নেই যদিও, তথাপি সমাজে #পুরুষ_বেশ্যার সংখ্যাই বেশি; যারা নিজেদের কাম চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে পতিতালয় সৃষ্টি করে, নিয়মিত যাতায়াত করে, এবং সেখান থেকে বের হয়ে এসে সেটাকে বলে, “#বেশ্যাখানা”।
অসংখ্য প্রতারণা, আর ফাঁদে ফেলে ভালোবাসার মুখ্য চরিত্রে থাকা তথাকথিত #প্রেমিক (ধর্ষক) বরাবরই নিরাপরাধী এবং নিরাপদও, যদিও মেয়েদেরকেই গায়ে #ধর্ষিতা তকমা লাগিয়ে মৃত্যু পর্যন্ত যুদ্ধ করে যেতে হয়, অবিরত!
আর জোরজবরদস্তি করে কাউকে মেরে ফেলার ঘটনাও নেহায়েত কম নয়।
তবু, সবকিছুর উর্ধ্বে নারীর চরিত্রেরই ঠিক নেই/ থাকে না বলে, পৃথিবী কেয়ামতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে!
এই দেশে ইমাম, মুয়াজ্জিন, ধর্মীয় শিক্ষক, এবং এই জাতীয় পুরুষ দ্বারা বলাৎকার শেষে কুরআন শরীফ হাতে ধরিয়ে দিয়ে শপথ করানো হয়, প্রকাশ না করার। হুমকি থাকে, মেরে ফেলারও। এতে, আমাদের #পবিত্র_ধর্মগ্রন্থের_অবমাননা হয় না!
অহরহ ঘরে-বাইরে কুরআন শরীফ ছুঁইয়ে শান্তি রক্ষার জন্য মিথ্যে বলার চর্চা চলছে। এতেও কুরআন শরীফের অবমাননা হয় না!
#পুরুষ শব্দটা, সব অন্যায়ের উর্ধ্বে। যারা বিড়ি থেকে শুরু করে নিকৃষ্ট শুকরের মাংস পর্যন্ত খেতে পারে। কোথাও কোনো অসুবিধা নেই তাতে। অথচ, একই অভ্যাস নারীর থাকলেই সমাজ রসাতলে চলে যায়!
কোন ধর্মগ্রন্থ নেশাদ্রব্যকে পুরুষের জন্য হালাল, আর নারীর জন্য হারাম করেছে? কোথায় বলেছে, সমস্ত অন্যায় কাজ, এবং আচরণ, পুরুষের জন্য হালাল?
এই কথাগুলো লেখার উদ্দেশ্য মোটেই এটা নয় যে, আমি নারীদের এসব অভ্যাসকে সমর্থন করছি। বরং, প্রতিবাদ করছি, নিজে যেটা করেন, সেটার জন্য অন্য কারো দিকে আঙ্গুল তুলবেন না কখনও।
এই অধিকার আমাকে, আপনাকে কাউকেই দেয়া হয়নি। পারলে, নিজের ভালোগুলোকে আরও উন্নত করার চেষ্টা করুন। তাতে আরও অনেক পাপ কমে যাবে। অন্তত, নিজেরটা তো কমবে।
আমি দুঃখিত, এভাবে অন্য একজনের পোস্ট থেকে ছবিটা নিতে হলো বলে।
কিন্তু, এই ধরণের পোস্ট দেখলে পোস্টদাতা সম্পর্কে একটা বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়, আমার মধ্যে। এবং বর্ণিত এই সংখ্যাটাই বেশি আমাদের চারপাশ জুড়ে।
শুরুটা কিন্তু আমাদের ঘর থেকেই। যেটা আগুনের মতো ছড়িয়ে পড়েছে, সমাজের সবজায়গাতেই।
এই ঘটনাগুলো না পরিবর্তিত হবে, আর না এগুলো থেকে উত্তরণও ঘটবে। কেননা, আমাদের শেখা, এবং শেখানোর বর্ণমালাতেই ভুল রয়েছে। আর আমরা গোগ্রাসে সেটাই গিলছি, প্রয়োগ করছি নির্দ্বিধায়।
এসব দেখে মাঝে মাঝে মনে হয় অন্ধ, মুক, বধির হয়ে জন্মালেই বোধ করি বেশি ভালো হতো!
দেখতে হতো না।
শুনতে হতো না।
বলতে হতো না।
এই তিনটা করতে গেলেও ঘেন্না ধরে যায়, জীবনের প্রতি।
আজকে শুধু বর্ণিত পুরুষদের জন্যই শুভ কামনা।
#নারীদের_উদ্দেশ্যেঃ
পুরুষের সমান হওয়ার মানসিকতা নিয়ে তাঁদের মতো খারাপ কাজ করলে, আপনি কখনও #নারী শব্দের জন্য উপযুক্ত নন। ওরা যেগুলো করে, সেটা না করলেই আপনি বরং ওদের থেকে অনেক বেশি কিছু। এই সাধারণ কথাটুকুও যদি না বোঝেন, তাহলে আপনি ভীষণ বোকা আর বোধহীন প্রাণী।
#নারী, শব্দটি যথেষ্ট সম্মানের। না হয় নিজেকে সবার আগে নিজেই সম্মান করে দেখালেন, কিভাবে আপনাকে সম্মান করতে হবে! এটা আপনার অধিকার নয়। অর্জন করে নিতে হবে। আর সম্মান কখনও বাজে আচরণ, এবং কাজ দিয়ে পাওয়া সম্ভব নয়।
#নোটঃ
ভালো না লাগলে এড়িয়ে যান। পুরোপুরি স্বাধীনতা আছে আপনার, সেটা করার।
Headlines
error: আপনি আমাদের লেখা কপি করতে পারবেন নাহ। Email: Info@mirchapter.com