আমার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার গল্প – মিলন

সেই ছোট বেলার কথা। আমি তখন ক্লাশ টূ-তে অধ্যয়নরত। বাবা তখন নতুন একটা মোবাইল কিনলো। কী আশ্চর্য! মোবাইলটা অন্য মোবাইল থেকে ভিন্ন। হাত লাগালেই চলে। মনে মোবাইলটা নিয়ে কৌতূহল জাগলো। বাবাকে প্রশ্ন করলাম এটা আবার কেমন মোবাইল? এটা কিভাবে চলে? বাবা বলল এটা নাকি টাচ-মোবাইল এটা নাকি সফটওয়্যার দিয়ে চলে। নেশা জাগলো মোবাইলটার উপর।

বাবার কাছ থেকে জানতে চাইলাম সফটওয়্যার কোন গুলো আর এটা কি দিয়ে তৈরী? বাবা বলতে পারলো না । সব কিছু মাথায় রয়েই গেলো। এরপর প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হলাম। এরই মাঝে যে উত্তর গুলো পাচ্ছিলাম না এইগুলো কিছু পেয়ে গেলাম তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নামক বইয়ে। কিন্তু আরো কিছু উত্তর যে আমার এখনো জানা হয় নি। একদিন হঠাৎ মনে ভাবনা জাগে আমি যদি নিজেই সফটওয়্যার বানাতে পারি? কিন্তু বানাবো কি করে? আমি তো কিছু পারি না।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের স্যার কে প্রশ্ন করে বসেছি- স্যার আপনি সফটওয়্যার বানাতে পারেন? স্যার উত্তর দিলো – “না” মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো। স্যার আমার মন খারাপ দেখে বললো কেন আমি প্রশ্নটা করলাম? আ্মি বললাম স্যার আমি সফটওয়্যার বানাতে চাই। স্যার বললো এটা বানানো শিখতে হলে আমাকে নাকি কম্পিউটার টেকনোলজিতে ভর্তি হতে হবে।  স্যার সাজেস্ট করেন এসএসসি’র পর কোন একটি পলিটেকনিকে ভর্তি হয়ে যাওয়ার জন্য।

ঠিক তখনই সিদ্ধান্ত নিলাম পলিটেকনিকেই পড়বো। SSC পরীক্ষা দেওয়ার পর রেজাল্ট দিলো। রেজাল্ট তেমন একটা আশানুরূপ হলো না । ভাবলাম আমার স্বপ্নগুলো হয়তো এখানেই থেমে যাবে। কোনো সরকারী পলিটেকনিকে চান্স পেলাম না। জেনারেল লাইনে একটা সরকারী কলেজে চান্স পেলাম কিন্তু ভর্তি হতে মন চাচ্ছে না। আমার মন খারাপ । একদিন আমার মন খারাপ দেখে বাবা বললো আমাকে বেসরকারী পলিটেকনিকে ভর্তি করিয়ে দিবে। বেসরকারী পলিটেকনিকে ভর্তি হওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিলাম কয়েকটা বেসরকারী পলিটাকনিক ইন্সটিটিউট দেখে আসলাম।

সব শেষে লাল পাহাড়ের পাদদেশের সিসিএন ক্যাম্পাসে গেলাম। অবশেষে ক্যাম্পাসটা ভালো লাগলো। ভর্তি হলাম। নিয়মিত ক্লাশ করতে লাগলাম ২য় সেমিস্টারে উঠলাম। নতুন নতুন বন্ধু হতে লাগলো ক্যাম্পাস ও সবার উপর মায়া জন্মাতে লাগলো আর ঠিক তখনই হানা দিলো “নোভেল করোনা ভাইরাস”। বন্ধ হয়ে গেলো সব কিছু। সেই সাথে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আর এই বন্ধের মাঝে মিস করি সেই লাল পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত “সিসিএন ক্যাম্পাস” –টাকে মিস করতে থাকি আর সে সাথে নতুন বন্ধুদের সাথে কাটানো মুহূর্তটা…………

Stay Home

Stay Safe

-Ajbur Rahman Milon
Computer Technology