“অধিকার কেড়ে নিও না”- সুমাইয়া আক্তার বৃষ্টি।

“এক প্রতারিতা বালিকার আত্মকথন-২”:
(“অধিকার কেড়ে নিও না”)
আমার প্রকৃতিপ্রেমী এ মনকে হত্যা করে স্রষ্টার অপার দান এই সোনালী বিকেলটা উপভোগ করার অধিকার কেড়ে নিও না!
আমি এই স্নিগ্ধ সোনালী শেষ বিকেলটার একজন উৎফুল্ল বালিকা হতে চাই।
আমার মনকে ধূসর করে দিয়ে বৃষ্টিস্নাত আকাশের এই সাতরঙা রংধনুর রূপ উপভোগ করার অধিকার কেড়ে নিও না!
আমি আমার জীবনকে এই রঙিন রংধনুর মতোই রঙিন করে তুলতে চাই।
আমার অর্পিত ভালোবাসার অবমাননা করে ভালোবাসার প্রতি আমার ঘৃণা জন্মিয়ে ‘ভালোবাসা’ নামক পবিত্র বিষয়টিকে ভালোবাসার অধিকার কেড়ে নিও না!
আমি তোমার ভালোবাসাময় প্রতিশ্রুতির সত্যতায় আগত নববসন্তের অপেক্ষায় বাঁচতে চাই।
আমার সকল বিশ্বাসের হন্তারক হয়ে তোমাকে অন্ধবিশ্বাসের অধিকার কেড়ে নিও না!
আমি তোমাকে আমার আগত জীবনে প্রতিটি সূর্যোদয় দর্শনলগ্নের একজন বিশ্বস্ত সঙ্গীরূপে পেতে চাই।
আমাকে কোন বেদনাদায়ক স্মৃতির চক্রব্যুহে আবদ্ধ রেখে বোতলবন্দী করে সুস্থ চিত্তের স্বাদ উপভোগের অধিকার কেড়ে নিও না!
আমি ‘সাতকাহন’ এর দীপার মতোই সকল অনাকাঙ্ক্ষিত স্মৃতি ভুলে যেতে চাই।
তোমার প্রতারণায় বিদ্ধ হৃদয়ের রক্তক্ষরণের ফলে সকল ইচ্ছা পূরণের অধিকারই যেন হারিয়ে ফেলেছি।তাই আবারও আকুতি প্রিয়-
আমার ইচ্ছেপূরণের রাজপ্রাসাদে মীরজাফরের মতো বিশ্বাসঘাতক হয়ে আমায় ইচ্ছাপূরণের যুদ্ধে জয়ী হওয়ার অধিকার কেড়ে নিও না!
_সুমাইয়া আক্তার বৃষ্টি
(০৩.০৯.২০)
(বিঃদ্রঃ বালিকাটি সম্পূর্ণই লেখকের মনের কল্পিত বালিকা☺)