হয়তো আবার দেখা হবে- ফয়সাল হাসান

দিনটা ছিল মেঘলা।আকাশে একঝাঁক মেঘ জমে আছে।বৃষ্টি আসবে বলে মনে হচ্ছে
কখন বৃষ্টি নামবে জানা নেই।বৃষ্টি আসার উপেক্ষা করে,আমি শুভ্র আর আমার বন্ধু রাজীব ফুচকা ও কফি খাওয়ার উদ্দেশ্যে রুম থেকে বাহির হলাম।কয়েক মিনিট হাঁটার পর, একটা ছাএী মেসের রাস্তার সামনের দিক হয়ে একটা মেয়ে হেঁটে আসছে।কিছুক্ষণ আবাক দৃষ্টিতে চেয়ে থাকলাম।আহা আকাশ থেকে যেন,কিছুটা কাল মেঘ সরে গেছে।এত মিষ্টি একটা মেয়ে আমি কখনও দেখেনি।কোন মেয়ের দিকে এমনভাবে সময় নিয়ে কখনও তাকিয়েছি কি না?মনে হয় না।আসলে তার বর্ননা দেওয়ার মতো আমার মুখের ভাষা নেই।শুধু এটা বলতে পারি চোখ ফেরাতে পারি নি।এতক্ষণ তার দিকে খেয়াল ছিল।তার সাথে আরও দুইটি মেয়ে ছিল,তা খেয়াল করিনি।একটা মেয়ের সাথে কথা বলে বিদায় নিল।
আমার বন্ধু রাজীব বলে উঠলো, কিরে যাইবি না?
হুম যাব।মেয়েটা দেখছোত?
হুম দেখছি।কিউট আছে।প্রেমে পরে গেছোত নাকি?
জানি না।কেন জানি ভাল লাগছে।এরকম ভাল আর কখনও লাগেনি। চল।
কই যাবি?
জানি না।হয়তো ওর পিছু পিছু।
তুই আসলে মামা গেছোত।
কেন?
এভাবে তো আর কখনও দেখেনি কোন মেয়ের পিছনে দৌড়াতে।
বেশি কথা বলিছ না।চল।নয়তো আর কখনও খুঁজে পাব না।চল।
কিছুটা সময় হাঁটার পর মেয়েটা একটা রিকশা নিল।রিকশা ওঠার আগে কয়েকবারের মতো আমার দিকে তাকিয়ে ছিল।হয়তো বুঝে গেছে,আমি ওর পিছু নিয়েছি।রিকশা চলতে শুরু করল।আমি রিকশা নিতে পারছি না।কি ভাবছেন টাকা নেই?ভাড়া নেই?না টাকা ছিল কিন্তুু রিকশা পেলাম না।কিছুক্ষণ হাঁটার পর।একটা রিকশা পেলাম।মামা যাইবা?
কোথায় যাবেন?
জানি না।
পাগল না কি?
আমার বন্ধু রাজীব ওই রিকশাটার পিছনে পিছনে চলেন।
ওহ মামা বুঝছি।মেয়েটাকে চিনেন?
না!
রিকশা চালক আর কিছু বলল না।আমিও আর কিছু জিজ্ঞেস করলাম না।কিছুক্ষণ যাওয়ার পর,মেয়েটার আরেটা বান্ধবী রিকশা থেকে নেমে বিদায় নিল।রিকশাটা কিছুক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখলাম।মেয়েটার রিকশা চলতে শুরু করল।সাথে সাথে আমাদের রিকশাও চলতে শুরু করল।
আমার বন্ধু রাজীব কিরে আর কত যাবি?
জানি না।তখন মেয়েটার রিকশা থামল।মেয়েটা কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে বাসায়  চলে গেল।আমরাও পিরে আসলাম।
রাজীব লাভ কি হল?
তুই বুঝবি না।সারা রাত তাকে ভাবতে লাগলাম।কখন সকাল হয়ে,বিকাল আসবে?কখন মেয়েটাকে দেখব।রাএি যেন কাটছে না।কখন জানি ঘুমিয়ে পরলাম।বুঝতে পারিনি।
বিকাল ৫ঃ৩০ মিনিট। রাজীব যাবি?
কই যাবি?আদা,লেবু চা খাওয়াবি? তাহলে যাব।
হুম খাওয়াবো চল।রুম থেকে বাহির হয়ে একটা টং দোকানে বসে আছি।মেয়েটা আসছে না।কোন সমস্যা হল না কি? কেন আসছে না।কিছু ভাল লাগছে না।ঠিক তখন চোখ পড়ল ফুচকা দোকানে।মেয়েটা আমার দিকে তাকিয়ে আছে।রাজীব ফুচকা খাবি?
না।খাব না।ফুচকা খেলে ডিনার করতে পারব না।
চল একটা খাবি চল।গেলাম ঠিকই কিন্তুু খাওয়া হল না।
কেননা মেয়েটা চলে গেল।আজকে পিছু নেওয়া আর হল না।মেয়েটা চলে গেল।কোন একটা কারণে আর পিছু নিলাম না।বাসায় পিরে আসলাম।
পরের দিন তৃতীয় দিন।ঠিক একই সময় গেলাম।মেয়েটাকে আর দেখলাম না।হয়তো অসুস্থ তাই আসেনি।তেমন কিছু না।তারপরের দিন ওর বাসার সামনে গেলাম। তাকে দেখতে পারলাম না।এভাবে তিন দিন চলে গেল।ওর কোন খোঁজ পেলাম না।অস্হিরতা সময় কাটছে আমার।কি হল?হঠাৎ করে কোথায় হারিয়ে গেল।আর দেখা পেলাম না।আর কি দেখা হবে না।কখনও কি দেখতে পারব না?অসুস্থ হয়ে পরলাম।
দিনটা ওকে দেখার ৫ দিন পর অসুস্থ শরীর নিয়ে বাহির হলাম।ওর খোঁজে। খুঁজে পেলাম না।মন খারাপ করে টং দোকানে বসে থাকলাম।হঠাৎ করে মেয়েটা আমার পাশে।
কি?আমাকে খোঁজছেন?আমার পিছনে দৌঁড়িয়ে লাভ নেই।আজকের পর থেকে আমাকে আর পাবেন না।
তারপর কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে চলে গেল।আমি কিছু বলতে পারলাম না।হয়তো কিছুটা সময় দাঁড়িয়ে থেকে,আমাকে সময় দিয়েছে কিছুটা বলার জন্য।আমি আসলেই বোকা কিছু বলতে পারলাম না।মোবাইল নাম্বারটাও নিতে পারলাম না।ভাবলাম হয়তো আবার দেখা হবে।তখন নাম্বার নিব।কিন্তুু আমার ধারণা ভুল ছিল।আর দেখা মিলল না।রোজ ওর খোঁজে বাহির হই ঠিকই। কিন্তুু তা আর হলো না।অনেক খুঁজেছি আর পেলাম না।আমার গল্পটা এখানে শেষ হতে পারত।কিন্তুু তা হল না।আজও খুঁজি কিন্তুু তাতে লাভ নেই জেনেও খুঁজে যাচ্ছি।হয়তো আবার কোন এক বসন্তে দেখা হবে।আমি ঐ বসন্তে আমার পালভাঙ্গা অনুভূতি তাকে জড়িয়ে ধরে জানাব।তা ভেবে খুঁজে যাাচ্ছি।হয়তো দেখা হবে।আমার উপলব্ধি তাকে জানাব।আর এখন এভাবে যাচ্ছে আমার সময়।

কমেন্ট করুন