শুভ বন্ধুত্ব দিবস- সুদীপা বিশ্বাস।

একটু একটু করে চেনা বিকেল গুলো বদলে যায়।সময়ের হাত ধরে আমরা সবাই বড়ো হয়ে যাই।পাড়ার বন্ধু থেকে বন্ধুত্বের মহল ছড়িয়ে পড়ে আরো বিস্তীর্ণ হয়ে স্কুল কলেজের গণ্ডি ছাড়িয়ে ও দূরে।
যাদের পাশে না বসলে স্কুলের একটা ক্লাস ও ভালো লাগতো না ,কলেজের লেকচার গুলো আরও বোরিং লাগতো,টিউশন থেকে ফেরার ভিড় ট্রেন গুলোও খালি খালি লাগতো তাদের সাথে যোগাযোগ কমে যায় ক্রমে।এই ব্যস্ততার দিন ব্যস্ততার জীবনে হয়তো খোঁজ নেওয়া হয়ে ওঠে না ।তবু আমার জীবনের প্রত্যেক টা বন্ধুকে আমার মনে পড়ে।আমার জীবনে তাদের সবার এত বেশি করে অবদান যা আমি কোনোদিন ও ভুলতে পারব না।
প্রত্যেকটা মুহূর্তে যতবার আমি ভেঙে পড়েছি ততবার তারা আমার হিম্মত হয়েছে।এই পড়াশুনা এটাতেও তাদের অনেক অবদান।আমার অনার্স আমার বি.এড এগুলো হয়তো আমার দ্বারা করা সম্ভব হতো না কোনোদিন।কোথায় হারিয়ে যেতাম আমি।আমি গিরগিটি অথবা সাপের বন্ধু কখনো দেখিনি কারণ যারা এগুলো তারা কোনোদিন ও বন্ধু হতেই পারে না.।
বন্ধুত্ব আমার জীবনে একটা আশীর্বাদের মতো।যে সম্পর্ক টা আত্মীয়ের থেকে প্রেমিকের থেকে অনেক বেশি।ভালো বন্ধুরা কখন যেনো আমার পরিবার হয়ে গেছে আর আমিও তাদের।আমার ব্যাবহার অনেককে অনেক সময় কষ্ট দিয়ে থাকবে হয়তো তার জন্যে দুঃখিত।যে বা যারা যোগাযোগ রাখিস না বিশ্বাস কর খুব মিস করি।ভাববো না ভেবে ও ভেবে ফেলি।পুরনো ছবি ঘাটলে মুহূর্ত গুলো চোখের সামনে এসে পড়ে।
কোনো দিন নিজেদের প্রফেশন গ্ল্যামারাস এই দিনের আড়ালে থাকা ধুলো মাখা দিন গুলো যদি তোদের মনে পড়ে আমায় না হোক বাকি দের অন্ততঃ মনে করিস।আমি না হয় খারাপ ছিলাম সবাই তো না ।এভাবে নিজেদের স্মৃতি গুলো মুছে ফেলিস না।শুভ বন্ধুত্ব দিবস সব বন্ধুদের।আমার জীবনের শক্তি দের ।সবাই খুব ভালো থাক।
print

কমেন্ট করুন