যৌন শিক্ষা নিয়ে কথা বলতে লজ্জা নয় – জাহাঙ্গীর আলম।

আমাদের মধ্যবিত্ত বাচ্চারা বাবা মাকে চুমু খেতে দেখি না। মাঝরাত্তিরে দু’জনের মধ্যে একজনও যদি আরেকজনকে জড়িয়ে ধরেন তো অধিকাংশ ক্ষেত্রে অপরজনের প্রত্যুত্তর আসে- “কী করছ? ছেলে/মেয়ে আছে তো।”
কনসেন্ট না থাকলে সোজাসুজি বলবেন- “আমার আজ ভালো লাগছে না”
শুধু শুধু ছেলেমেয়ের দোহাই দেবেন না। আপনার সন্তানকে এই ধারণাটা নিয়ে বড় হতে দিন যে- “দু’জন মানুষ যদি দু’জনকে ভালোবাসেন তাহলে তাদের চুম্বনটা খুব সাধারণ ব্যাপার।”
উল্টাপাল্টা এবং অনিয়মিত কাজ করলে আপনি আপনার কাজের বুয়াকে ছেলেমেয়ের সামনে- “মাসের শেষে টাকা দেইনা তোকে? তাহলে কাজ এমন করে করিস কেন?” টাইপের ক্যাপিটালিস্ট ঔদ্ধত্য দেখাতে পারেন, আর ভালোবাসার স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়াগুলো সন্তানদের সামনে করতে পারেন না এবং শেখাতে পারেন না?
আমাদের মধ্যবিত্ত ঘরের বাচ্চা বুঝে যাক যে বাবা-মায়ের ভালোবাসাটা পাশের বাসায় থাকা হরিপদ আর বিন্দুবালার দু’জনের সংসার স্ত্রী-স্বামী থাকা সত্ত্বেও আড়ালে যে চুম্মা-চাটি করে সেটার থেকে আপনাদের ভালোবাসা অনেক আলাদা, পবিত্র এবং লজ্জার বিষয় না।
আমার বাবা মায়ের যে প্রেম করে বিয়ে হয়েছিল সেটা আমরা সকল ভাইবোন জানি। এটা আমাদের জানানো হয়েছে, আর জানিয়েছে আমাদের বাবা-মা’ই। সেই সাথে জানিয়েছে, তারা কি করে এবং কখন কিভাবে বিয়ের পিঁড়িতে বসছে এবং তখন তাদের বয়স কত ছিলো।
কিন্তু অনেক বড় অবধি ভাবতাম প্রেম করা মানে মা ভাত বেড়ে দেবে, আর ভদ্রলোক(বাবা) খেতে বসে সারাদিনের গল্প বলবে!
ডিয়ার মধ্যবিত্ত পরিবার,
বাচ্চাকে যৌনশিক্ষা দিয়ে বড় করুন। বাচ্চা পর্ণ দেখে যৌনতা শেখার আগেই তাকে এই ধারণাটা দিন যে- “যৌনতা প্রণয়ের খুব স্বাভাবিক এবং সুস্থ পরিণতি যেখানে দু’জনের সম্মতি সব থেকে জরুরি। যৌনতা একটি জৈবিক চাহিদা।”
তা নাহলে এত ধর্ষকের মাঝখান থেকে আপনার ছেলে-মেয়েও ধর্ষক হয়ে (মহিলাও ধর্ষক হয়, সেটাও শেখান বাচ্চাকে) বেরিয়ে আসতে পারে।
শেখান যে- “দু’জনেরই সম্মতি থাকলে এটা ধর্ষণ নয়।”
তা না হলে আপনার ছেলেমেয়ে বাসে,মেট্রোতে, ভিড়ে, মেলায় কনু ঘেষা কাকু-দাদু হয়ে উঠতে পারে। আর না হয় পথে, ঘাটে, লেডিস হোস্টেলের সামনে কিংবা স্কুলের রাস্তায় বখাটে পনা করে বখে যাবে। তাদের এ ও শেখান- “সমকামিতা, বায়সেক্সুয়াল, লেসবিয়ান, হোমোসেক্সুয়াল কী?” নইলে আপনার ছেলে-মেয়ে অসহিষ্ণু হয়ে উঠবে।
কারন অধিকাংশ ধর্ষনের কারণ ধর্ষকের যৌন শিক্ষার অভাব। নিজে সাইন্সের ছাত্র হয়ে বলছি, বাচ্চাকে সাইন্স পরে শেখাবেন, আগে এগুলো শেখান, বাকিগুলো হয়ে যাবে…
ধন্যবাদ

কমেন্ট করুন