কনফিউশন – মীর হৃদয়।

কনফিউশন – মীর হৃদয়।

একটাবার ভেবে দেখেনতো কেমন হতো যদি মানুষের সৌন্দর্য তার মনের সৌন্দর্যের মাত্রায় দেখা যেত। যদি এমন হতো যার মন যত সুন্দর তার চেহারা এবং সর্বোপরি সৌন্দর্য একদম অন্য ততটাই সুন্দর। কি হতো তাহলে?
আপনার চিন্তা ভাবনায় আরও টুইষ্ট আসবে যদি শুধুমাত্র আপনার দৃষ্টিশক্তিতেই এমনটা হতো।

 

ধরুন হটাৎ একদিন ঘুম থেকে উঠে আপনি আয়নায় দেখতে পেলেন যে আপনার চেহারা অনেক সুন্দর হয়ে গেছে, অথবা আগের চেয়েও একটু শ্যামলা হয়ে গেছেন আপনি। আপনি নিজেকে আবিষ্কার করছেন অন্য কারো শরীরে। কিন্তু আসলে আপনি আপনার মধ্যেই আছেন, আপনাকে সকলেই চিনতে পারছে। আপনার পার্সোনালিটি সকলের কাছেই আগের আপনিতেই আছে কিন্তু আপনার দৃষ্টি যা দেখছে আপনি তা বিশ্বাস করতে পারছেন নাহ। কারন আপনার মনের সৌন্দর্য অনুযায়ী আপনার চোখ আপনাকে আপনার বাহ্যিক সৌন্দর্য দেখাচ্ছে। তারপর আপনি আপনার আম্মুকে দেখলেন, আপনি আপনার আম্মুকে চিনতে পারলেন কিন্তু আপনার দৃষ্টিতে আপনার মা আগের চেয়ে আরো অনেক বেশি সুন্দর হয়ে গেছে। আর আপনার একদম ছোট ভাইটা যেটা এখনো অবুঝ সেও আরো অনেক সুন্দর হয়ে গেছে।আপনি ঘর থেকে বেরিয়ে সব কিছুই আপনার পরিচিত, সব রাস্তাগুলো পরিচিত সব ঠিকঠাক কিন্তু আশেপাশের মানুষগুলোকে চিনতে পারছেন নাহ। এমন সময় আপনার প্রতিবেশী একজন যে কিনা পুলিশ। দেখতে অনেক সুন্দর ছিলো লোকটা, কিন্তু স্বভাবে ছিল ঘুষখোর। আগে খুব সুন্দর একটা বাইকে করে যেতো আপনার সামনে দিয়ে। আজকেও সব ঠিক ছিল শুধু আপনি মানুষটাকে চিনতে পারছেন নাহ, কেমন যেনো অনেক মোটা আর বিশ্রি চেহারা একটা ঘুষখোর গেলো আপনার পাশ দিয়ে, দেখলেই মনে হয় গা ছমছম করে।

 

এমন সময় আপনার চোখ পরলো আপনার বাসার একদম সাথেই একজন ফকির বসতো, যে আগে সব সময় ছেঁড়া কাপড় পড়া থাকতো, দেখেই মনে হতো যেন কয়েক দিন ধরে গোসলও করতে পারেনি লোকটা, আজকে দেখছেন কোর্ট টাই পড়া একটা লোক, অনেক সুন্দর দেখাচ্ছে তাকে, কিন্তু তারপরও লোকটা ভিক্ষা করছে রাস্তার পাশে বসে। এত সব কিছুর মাঝে আপনি খুবই কনফিউজ থাকবেন। কারন তাদের মনের সৌন্দর্য আপনি আগে কখনো দেখেননি। এমন কনফিউজ অবস্থায় আপনি আপনার বন্ধুর দেখা পেলেন। কিন্তু তখন আবার আশ্চর্য হবেন কারন এতো অচেনার ভিরে একমাত্র আপনার বন্ধুকেই আপনি সেই পুরনো রুপে দেখছেন। যার মধ্যে কোনো পরিবর্তন নেই। যার কারন আপনি আপনার বন্ধুকে একদম মন থেকে যানেন। তার মন কেমন সেটা আপনার চেয়ে ভাল কেউ জানে নাহ। এমনকি আপনার বন্ধুর মা বাবাও নাহ।

 

কনফিউশন মাথায় রেখেই আপনার বন্ধুকে আপনি সব বলে দিবেন। আপনার সাথে যা যা ঘটেছে, এবং আপনি যেসব ব্যাপারে হয়রান, কারন আপনি নিজেও জানেন নাহ যে আপনি মানুষের মনের সৌন্দর্যতা অনুযায়ী মানুষের চেহারার সৌন্দর্য দেখতে পারছেন। কিন্তু এমন সময় আপনার বন্ধু কি করবে? সে আপনাকে বিশ্বাস করবে নাহ, সে একটা সুন্দর ডায়লয় মারবে আপনাকে, যে সে ” শয়তান কে ভুল করে বিশ্বাস করলেও আপনাকে করে নাহ।”
Headlines
error: আপনি আমাদের লেখা কপি করতে পারবেন নাহ। Email: Info@mirchapter.com
google.com, pub-4867330178459472, DIRECT, f08c47fec0942fa0