আম লিচুর গল্প- অপু হাসান।

 শুরুটা ভালো খবর দিয়ে করবো না খারাপ খবর দিয়ে করব ?
না থাকে দুইটা এক সাথে দেই , কি বলেন ? 🙂
গত সপ্তহে ৪ (চার) কেজি আম কিনলাম অনলাইন (ফেসবুক গ্র্রুপ) থেকে যার মধ্যে ৩ (তিন) কেজি পঁচা। 🙁 ভালো খবর হচ্ছে যিনি আম বিক্রয় করেছেন তিনি তার লাভের টাকা টা পকেটে ভরতে পেরেছেন।
খারাপ খবর হচ্ছে আমি আম কিনে ঠকেছি এবং বাসার সবাই আমাকে নিয়ে হাসা হাসি করতেছে। আপনারা যারা ফেইসবুক এ ক্যামিকেল ফ্রি সরাসরি বাগান থেকে সংগৃহীত বলে ৫০/৬০ টাকার আম ৯০ থেকে ১২০ টাকায় আমাদের নিকট বিক্রয় করতেছেন আপনারা কি একবারও ভেবেছেন আসলে আপনারা আমাদেরকে ঠককাচ্ছেন।
উদহারণ-১ : যেহেতু আমি আপনাকে প্রিমিয়াম দাম (দ্বিগুন বা তার ও বেশি) দিচ্ছি, আমরা আপনাদের কাছে এইটুকু নিশ্চই আশা করতে পারি এই নাজুক এবং কোমল ফল গুলুকে সুন্দর বক্স করে তার ভিতর কিছু পেপার অথবা সফ্ট কোনো সাপোর্টিং ম্যাটেরিয়াল দিয়ে পাঠাবেন।
অবশ্য এতে করে আপনার লাভ এর পরিমান কমে যাবে, সেই ক্ষেত্রে আপনি তো টাকা ধার করে (১00 টাকা ইনভেস্ট করলে ২৫ টাকা লাভ দিবেন বিনিয়োগকারীকে) ব্যবসা শুরু করেছেন, সো আমাদের না ঠকালে কি ভাবে চলবে বলুন।
উদাহরণ-২ : ৫০/৬০ টাকার আম ৯০ থেকে ১২০ টাকা কেন বলছি, আমি গত কয়েক বছর ধরে অনলাইন এ আম কিনছি, একজন এর কাছ থেকে দুঃখ পেয়ে নতুন একজন এর কাছে গিয়েছি ভালো কিছুর আশায় , কিন্তু হায় , বিধি বাম। আবারো সেই একই অবস্থা।
তাই একবার আমি নিজেই ঠিক করলাম আম এর শহর (রাজশাহী ) যাবো , এবং সত্যিই গেলাম।
চলবে….
print

কমেন্ট করুন